কুয়াশা_মিলিয়ে_যায়_রোদ্দুরে #পর্ব_১

0
268

“বড়ো বোনের প্রাক্তনকে বিয়ে করার পর জানতে পারি সে আমার সাথে ভালোবাসার নাটক করেছে শুধুমাত্র তার প্রাক্তন তিন্নি আপুকে কষ্ট দেওয়ার জন্য!”

কুয়াশার কথা শুনে মিসেস শামসুন্নাহার শিউলির ভ্রূদ্বয় কুঁচকে আসে। মেয়ের কথার কিছুই বুঝতে পারছেন না তিনি।

“এসব কী বলছ তুমি?”

“আমি ঠিকই বলছি মা। তোমার কাছে আমি সব কথা ভাগ করলেও কিছু কথা তোমাকে বলা হয়নি। তিন্নি আপুর বিয়ের আগে যে ছেলের সাথে সম্পর্ক ছিল সে আর কেউ না মা। সে তুরাব! হ্যা, আমার বর তুরাব তৌহিদই সেই ছেলে।”

“এই কথাগুলো তুমি আমাকে আগে কেন বলোনি?”

“তিন্নি আপু মানা করেছিল।”

“কেন?”

হঠাৎ কলিংবেল বেজে ওঠার কারণে কুয়াশা আর কিছু না বলে দরজার সামনে চলে যায়। দরজা খুলে দেখে তার প্রাণপ্রিয় বান্ধবী মল্লিকা দাঁড়িয়ে আছে।

“মলি ভেতরে আয়।”

মল্লিকাকে সংক্ষেপে সবাই মলি বলে ডাকে। মলি ভেতরে ঢুকে কুয়াশাকে প্রশ্ন করে,

“তুই এখন এখানে কেন? আর হঠাৎ জরুরি তলব? কিছু কী হয়েছে?”

“আগে তুই বস তারপর বলছি।”

এই বলে দু’জন মিসেস নাহারের দু’পাশে বসে। অতঃপর কুয়াশা বলে,

“তুরাবের সাথে তিন্নি আপুর প্রায় বছর খানেকের সম্পর্ক ছিল। আপু তুরাবকে ভীষণ ভালোবাসত। কিন্তু তুরাব অনেক মেয়ের সাথে সম্পর্কে থাকায় আপু রাগ করে তুরাবের বন্ধু ফয়সাল ভাইয়াকে বিয়ে করে। ফয়সাল ভাইয়ার শুরু থেকেই আপুর উপর নজর ছিল। আপুকে এত তারাতাড়ি নিজের করে পেয়ে সে যেন আকাশের চাঁদ হাতে পেয়েছিল। নিজের বন্ধু আর প্রেমিকার এমন সম্পর্ক মেনে নিতে পারেনি তুরাব। এতে করে তুরাব রেগে যায়। সেই রাগ গিয়ে পড়ে আমার উপর। তিন্নি আপুর উপর প্রতিশোধ নিতে গিয়ে সে আমাকে বিয়ে করে।”

মলি অবাক দৃষ্টে তাকিয়ে আছে কুয়াশার দিকে। মিসেস নাহার নিজেও প্রচন্ডভাবে অবাক হয়েছেন মেয়ে কথায় সেটা তার চাহুনিই বলে দিচ্ছে। কুয়াশা কিছুক্ষণ থেমে পুনরায় বলে,

“তুরাব যেদিন আমাকে বিয়ে করার প্রস্তাব নিয়ে এই বাসায় আসে সেদিন আমি না বলতেই যাচ্ছিলাম,সেই মুহূর্তে!”

“সেই মুহূর্তে কী?”

আপু আমাকে ডেকে বলে,

“দেখ কুয়াশা যা হচ্ছে হতে দে। আমি তো ফয়সালের সাথে সুখেই আছি। তুই বরং তুরাবকে বিয়ে করে নে। এতে করে সবারই ভালো হবে। আমি তোর মামাতো বোন হলেও কখনো তোর খারাপ চাইনি। তুই অন্যরকম একটা মেয়ে। আমার বিশ্বাস তুই তুরাবকে পাল্টাতে পারবি।”

এসব কথা শুনে আমি তোমাদের সামনে এসে তুরাবের সাথে আলাদা করে কথা বলতে চাইলাম। তোমরা সবাই অনুমতি দিলে।

“তারপর কী কথা হলো তোদের মধ্যে?”

“মলি জানিস তো, তুরাব মেয়েদের কথার জালে ফাঁসাতে পটু অনেকটা। আমি তাকে ঘরে নিয়ে গিয়ে সরাসরি জিজ্ঞেস করি, আমাকে বিয়ে করার সিদ্ধান্ত কেন নিলেন আপনি?”

তুরাবের সোজাসাপ্টা উত্তর,

“তিন্নির প্রতি আমার ভালো লাগা ছিল। আর তোমার প্রতি আমার ভালোবাসা তৈরি হয়েছে। তিন্নি সুখে থাকতে পারলে আমি কেন পারব না কুয়াশা? তোমার মধ্যে যে চঞ্চলতা আছে সেটা আমাকে আকৃষ্ট করে। আমি তোমাকে কথা দিচ্ছি, তিন্নি আমাকে যে কারণে ছেড়ে চলে গিয়েছে সেইসব বাদ দিয়ে দিব আমি। কেন জানো? শুধুমাত্র তোমার জন্য। তোমার আপু আর তোমার সাথে তো আমার প্রায় একইসাথে পরিচয়। শুরু থেকেই তোমার কথাগুলো আমার ভালো লাগে। তোমার আপুর সাথে সম্পর্কে ছিলাম বিধায় তোমাকে কিছু বলতে পারিনি। কিন্তু এখন তো আর কোনো বাঁধা নেই।”

“কত সহজে এসব বলে দিলেন তুরাব ভাইয়া। কিন্তু আমি কেন আপনাকে বিয়ে করব? নিজের বোনের প্রাক্তনকে বিয়ে করলে তো আমার চরিত্রের উপর আঙুল উঠবে।”

“কেন আঙুল উঠবে? আমাদের সম্পর্কের কথা হাতে গোনা কয়েকজন ছাড়া তো কেউ জানে না।”

“তবুও তুরাব ভাইয়া, আমি এই বিয়ে করতে পারব না।”

“মানুষ কী আজীবন এক থাকে? একটা সুযোগ কী আমার প্রাপ্য না? আমার কী ভালো থাকার অধিকার নেই? আমি তোমাকে ভালোবেসে বদলাতে চাই। দয়া করে আমাকে ফিরিয়ে দিয়ো না।”

সেই মুহূর্তে আমার ফোনে আপুর কল আসে। কল রিসিভ করার পর আপু আমাকে পাশের ঘর থেকে বলল,

“তুই তুরাবের সিদ্ধান্তে রাজি হয়ে যা বোন। দেখ আমি তো সুখে আছি তাইনা? তুই ওকে বিয়ে করলে আমি একদম কষ্ট পাব না। আর আমি যা পারিনি সেটা তুই পারলে খুশি হব আমি। তুই তুরাবকে পাল্টে দিবি। ওর বাজে স্বভাবগুলো ধীরে ধীরে কমিয়ে আনবি তুই। এমনিতে তুরাব ভালো ছেলে। আমাদের এক বছরের সম্পর্কে তুরাব আমার হাত স্পর্শ করে দেখেনি। ওর স্বভাব মেয়েদের সাথে ফ্লার্ট করা। এছাড়া ওর আর কোনো বাজে দিক নেই। নির্দ্বিধায় তুই ওকে বিয়ে করতে পারিস। সত্যি বলতে আমিও তুরাবের থেকে সরে আসতেই চাচ্ছিলাম। ফয়সালকে নিয়ে আমি বেশ ভালো আছি। তাই আমার কষ্ট হবে ভেবে এই বিয়ে ভেঙে দিস না কুয়াশা। আর আমাদের সম্পর্কের কথা অন্য কেউ যেন না জানে এটা অনুরোধ আমার।”

তুরাব আর আপুর কথা শুনে আমি কি করব বুঝতে পারছিলাম না। মামাতো বোন হলেও তিন্নি আপুকে নিজের বোন ভাবতাম। তার প্রাক্তনকে বিয়ে করলে আমার চরিত্রের দিকে আঙুল উঠবে এই ভেবে আমি ভয় পাচ্ছিলাম। তুরাব আমাকে আশ্বস্ত করে বলে,

“তিন্নি আর আমার সম্পর্কের কথা আর কেউ জানবে না কথা দিচ্ছি। আর বিশ্বাস কর মেয়েদের সাথে ফ্লার্ট করলেও কখনো তাদের স্পর্শ পর্যন্ত করিনি আমি। তুমি আমাকে বিয়ে করলে ঠকবে না। নিজের সর্বোচ্চ দিয়ে তোমাকে ভালো রাখার চেষ্টা করব আমি। একটা সুযোগ দাও আমাকে।”

আমি কোনো উত্তর না দিয়ে ঘর থেকে বের হতেই শুনতে পাই তোমাদের সবার তুরাবকে পছন্দ হয়েছে। সবকিছু ভেবে আমি সিদ্ধান্ত নিই ওকে বিয়ে করার। ভেবেছিলাম আমার জন্য কোনো ছেলে সঠিক পথে আসলে ক্ষতি নেই। আর আমার জীবনেও তখন কেউ ছিল না। তাই আমি রাজি হয়ে যাই এই বিয়েতে।

কুয়াশা কথাগুলো বলে থেমে যায়। মিসেস নাহার এবার মেয়েকে প্রশ্ন করেন,

“তাহলে সমস্যা কোথায় হলো? তুরাব কী বদলায়নি?”

এমন কথা শুনে কুয়াশার মুখে তাচ্ছিল্যের হাসি ফুটে ওঠে।

“মা, তুরাব আর তিন্নি আপু দু’জন নিজেদের স্বার্থে আমাকে এসব বুঝিয়ে বিয়েতে রাজি করায়। আসল কাহিনি তো সম্পূর্ণ আলাদা।”

মলি অস্থির হয়ে বলে,

“ধুর, আমি কিচ্ছু বুঝতে পারছি না। তুই সবটা পরিষ্কার করে বল তো আমাদের।”

“বলছি। বিয়ের দিন রাতে যখন আমি তুরাবের ঘরে বসে ছিলাম তখন আপু আমাকে কল দেয়। কল দিয়ে আমাকে বলে,
তুই তুরাবের কাছে যাবি না। এই বিয়েটা একটা নাটকের অংশ। তুরাব হয়তো সত্যি তোকে ভালোবাসে। তবে তুই তুরাবকে ভালোবাসার নামে কষ্ট দিবি। ওই ছেলে তোর আপুকে কষ্ট দিয়েছে। তুই তার প্রতিশোধ নিবি না বোন?”

“কী? তিন্নি আপু তোকে এসব বলেছে?”

“হ্যা, আপু নিজ স্বার্থে আমাকে ব্যবহার করেছে। কিন্তু সেদিন প্রথমবার আমি আপুর কথা শুনিনি। এমনিতে ঠিক আছে বললেও আমি তুরাবকে কাছে টেনে নিই। আপুর উপর জেদ চেপে গিয়েছিল আমার। ওর জন্য কম কিছু তো করিনি আমি। আর সেই বোন কী করল আমার সাথে? আমাকে প্রতিশোধ নেওয়ার অ স্ত্র হিসেবে ব্যবহার করল। আমি ভেবেছিলাম তুরাবকে সম্পূর্ণ পাল্টিয়ে আপুর সামনে গিয়ে দাঁড়িয়ে বলব, তোমার যেমন সুখে থাকার অধিকার আছে তেমন আমারো সুখে থাকার অধিকার আছে আপু। তুমি চাইলে ভালোবাসা আর যত্ন দিয়ে তুরাবকে বদলাতে পারতে। কিন্তু তুমি তা করোনি। উল্টো মাঝপথে কিছু কারণ বশত ওকে ছেড়ে চলে গেলে। এই দেখ, আমি তুরাবকে পাল্টাতে পেরেছি। কীভাবে পেরেছি জানো? আমার ভালোবাসা আর যত্নের দ্বারা।”

কথাগুলো বলে কুয়াশা কান্নায় ভেঙে পড়ে। মিসেস নাহার মেয়েকে বুকে আগলে নিয়ে বলে,

“আমার মেয়ে না খুব ধৈর্যশীল। তাহলে আজ কাঁদছ কেন মা?”

“আমি যে এই কথাগুলো বলতে পারলাম না মা। তুরাব আমার বিশ্বাস ভেঙে দিয়েছে। এই যন্ত্রণা মেনে নেওয়া কী খুব সহজ?”

চলবে??

#কুয়াশা_মিলিয়ে_যায়_রোদ্দুরে
#পর্ব_১
#লেখায়_নামিরা_নূর_নিদ্রা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here